Home / এক্সক্লুসিভ / ৫টি খাবার যা ভায়াগ্রার চেয়ে বেশি কার্যকর!

৫টি খাবার যা ভায়াগ্রার চেয়ে বেশি কার্যকর!

৫টি খাবার যা ভায়াগ্রার চেয়ে বেশি কার্যকর!

 

সুস্থ দেহ, সুন্দর মন’ আর সেটা পাবার আকাঙ্খা সবার থাকে। আজীবন তারুণ্য ধরে রাখতে এবং যৌবনের রাঙিন দিন অতিবাহিত করতে কার না ইচ্ছে করে। সেই ইচ্ছে পূরণের জন্য নিয়মিত পুষ্টিকর ভেজালমুক্ত খাবার খাওয়ার কোনো বিকল্প নেই।

শুধু তাই নয় যৌনজীবনে উদ্দীপনা আনতে ভায়াগ্রার সাহায্য নেন অনেকেই। বর্তমান জীবনযাপন ও খাদ্যাভ্যাসের কারণে যৌনজীবনে শিথিলতা আসছে। প্রতিদিনের খাদ্যতালিকায় যদি থাকে এমন কিছু খাবার যার মধ্যে রয়েছে জিনসিনোসাইড, তাহলে আপনার জীবনে ফিরে আসতে পারে যৌবন।

 

জেনে নিন এ জাতীয় ৫টি ভেষজ খাবারের নাম, যা ভায়াগ্রার চাইতে বেশি উত্তেজক-

সজনে ডাঁটা: এক গ্লাস দুধে সজনে ফুল, লবন ও গোলমরিচ মিশিয়ে প্রতিদিন খেলেও আপনার যৌন ক্ষমতা বাড়বে। আমেরিকান জার্নাল অফ নিউরোসায়েন্স সূত্র জানায়, পুরুষদের লিঙ্গ উত্থানের সমস্যা বা উদ্দীপনার ঘাটতিতে খুব ভাল কাজ করে সজনে ডাঁটা। আপনি প্রতিদিনের ডায়েটে রাখতে পারেন সজনে ডাঁটা।

 

রসুন: রক্তে শর্করা ও কোলেস্টেরলের মাত্রা নিয়ন্ত্রণ করে রসুন। ফলে প্রতিদিনের ডায়েটে যদি রসুন থাকে তবে যৌন উত্তেজনা বাড়বে। আফ্রিকান হেলথ সায়েন্সসও এটা প্রামাণ করেছে, আদার মতোই উপকারী রসুন।

হিং:  রান্নায় আমরা হিং মেশাই। প্রতিদিন সকালে ১ গ্লাস জলে এক চিমটি হিং ফেলে খেলে আপনার কামনা বাড়বে। এ ব্যপারে ডা. এইচ কে বাকরু তার ‘হার্বস দ্যাট হিল ন্যাচরাল রেমেডিস ফর গুড হেলথ’ বইয়ে লিখেছেন, যদি টানা ৪০ দিন ধরে রোজ ০.০৬ গ্রাম হিং খাওয়া যায় তাহলে পেতে পারেন সুস্থ যৌনজীবন।

 

 

জিরা: জিরার মধ্যে থাকা পটাশিয়াম ও জিঙ্ক যৌনাঙ্গে রক্ত সঞ্চালন বাড়ায়। ফলে বাড়ে যৌন উদ্দীপনা। প্রতিদিন এক কাপ গরম চায়ে জিরা ফেলে খেতে পারেন উপকার পাবেন।

আদা: বিভিন্ন ক্ষেত্রে আদার উপকারিতার কথা আমাদের সবার কম-বেশি জানা। সুস্থ যৌনজীবন বজায় রাখতেও অপরিহার্য্য হতে পারে আদা। আদার মধ্যে থাকা ভোলাটাইল অয়েল স্নায়ুর উত্তেজনা বাড়ায় ও রক্ত সঞ্চালনের মাত্রা ঠিক রাখে।

 

আরো পড়ুনঃ

 

Check Also

স্ত্রীকে সঠিক ভাবে যৌন উত্তেজিত করার জন্যে যা আপনার জানা একান্ত জরুরী!

স্ত্রীকে সঠিক ভাবে যৌন উত্তেজিত করার জন্যে যা আপনার জানা একান্ত জরুরী!   ১. সিঙার: …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *