শিশুদের বাড়ন্ত বয়সে ক্যালসিয়ামের অভাব পূরণে প্রচুর পরিমাণে দুধ পান করানোর পরামর্শ দেন স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ ও পুষ্টিবিদরা। কারণ, দুধে উপস্থিত ক্যালসিয়াম হাড় গঠন ও শক্তিশালী করতে সহায়তা করে। শুধু তাই নয়, দুধ হাড়ের দুরারোগ্য ব্যাধি অস্টিওপোরোসিস প্রতিরোধে কার্যকরী ভূমিকা পালন করে। কিন্তু সম্প্রতি এক গবেষণায় উঠে এসেছে ভিন্ন তথ্য। বলা হচ্ছে, বেশি দুধ পান স্বাস্থ্যের জন্য মারাত্মক ক্ষতিকর।

 

 

বিট্রিশ মেডিকেল জার্নালে প্রকাশিত গবেষণা প্রবন্ধটিতে বলা হয়, বেশি দুধ পান স্বাস্থ্যের জন্য ভালো নয়।

 

একদল সুইডিশ গবেষক বলছেন, দিনে তিন গ্লাসের বেশি দুধ পান অল্প বয়সে মৃত্যুর ঝুঁকি বাড়ায়।

 

 

সুইডেনের উপসালা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ও গবেষণা দলের প্রধান কার্ল মাইকেলসন বলেন, আমাদের গবেষণা ফলাফল হাড়ের ক্ষয় প্রতিরোধে প্রচুর পরিমাণে দুধ পানের পরার্শের বৈধতা নিয়ে প্রশ্ন তুলতে পারে।

 

গবেষণায় দেখা গেছে, যেসব নারী দিনে তিন গ্লাসের বেশি দুধ পান করে তাদের অল্প বয়সে মৃত্যু ও হৃদরোগের ঝুঁকি দিগুণ বৃদ্ধি পায়। একই সঙ্গে যেসব নারী দিনে এক গ্লাসের কম দুধ পান করে তাদের চেয়ে এদের ক্যান্সারের ঝুঁকি ৪৪ শতাংশ বেশি বৃদ্ধি পায়।

 

 

অন্যদিকে বিএমজেতে ২০১৫ সালের ২৮ অক্টোবর প্রকাশিত গবেষণা প্রবন্ধে বলা হয়, যেসব পুরুষ দিনে তিন গ্লাস বা তার বেশি দুধ পান করে অল্প বয়সে তাদের মৃত্যু ঝুঁকি ১০ শতাংশ বৃদ্ধি পায়।

 

তবে কম বা বেশি দুধ পানের সঙ্গে নারীর হাড় ক্ষয়ের কোনা সম্পর্ক খুঁজে পাননি গবেষকরা।

 

 

এদিকে, গবেষণায় উঠে আসা আশংকাজনক ফলাফলের ভিত্তিতে মানুষকে কম দুধ পান করার পরামর্শ দেয়ার আগে তা নিযে আরো গবেষণা করা দরকার বলে মনে করছেন গবেষকরা।