[X]
Home / স্বাস্থ্য সেবা / জেনে নিন পায়ের দুর্গন্ধ দূর করার ১০টি টিপস!

জেনে নিন পায়ের দুর্গন্ধ দূর করার ১০টি টিপস!

শরীরের যেকোন অংশের চেয়ে এমনকি বগলের চেয়েও বেশি ঘর্ম গ্রন্থি থাকে পায়ের পাতায়। যখন পায়ের পাতার ঘর্মগ্রন্থি থেকে ঘাম নির্গত হয় তখন পুরো স্থানটি দুর্গন্ধ সৃষ্টিকারী ব্যাকটেরিয়ার প্রজনন স্থলে পরিণত হয়। হরমোনের পরিবর্তনের কারণে (যেমন-বয়ঃসন্ধি কালে অথবা প্রেগনেন্সির সময়), স্ট্রেসের মধ্যে থাকলে, দীর্ঘক্ষণ দাঁড়িয়ে থাকলে, ব্যায়াম করলে বা গরমের কারণে পা ঘামতে পারে। পায়ের পাতার দুর্গন্ধ দূর করার জন্য বিশেষজ্ঞ অনুমোদিত কিছু টিপস জেনে নিই চলুন।

 

১। দিনে অন্তত একবার আপনার পা আঙ্গুলের ফাঁকগুলো সহ পরিষ্কার করে ধুয়ে নিন এবং ভালোভাবে মুছে শুস্ক রাখুন। অ্যান্টি ব্যাকটেরিয়াল সাবান ব্যবহার করতে পারেন।

 

২। ঘাম ও দুর্গন্ধ দূর করার জন্য পায়ের পাতার নীচের দিকে আন্ডারআর্ম ডিওডোরেন্ট বা অ্যান্টিপারস্পিরেন্ট স্প্রে ব্যবহার করুন। এরপর কিছুটা ফুট পাউডার পায়ের পাতার উপর ছিটিয়ে দিন। এটি অতিরিক্ত ঘাম শোষণ করে নিবে এবং দুর্গন্ধ দূর করতেও সাহায্য করবে।  

 

৩। জুতার ধরণও অনেক বড় পরিবর্তন আনতে পারে। অনেক বেশি আঁটসাঁট জুতা যেমন- বুট জুতা সম্ভবত গন্ধের সৃষ্টি হয়। কারণ এই ধরণের জুতায় বায়ু চলাচল করতে পারেনা। যদি সম্ভব হয় তাহলে সামনের দিকে খোলা জুতা বা স্যান্ডেল ব্যবহার করুন। অ্যাথলেটিক জুতা ব্যবহার করতে পারেন যার পাশ দিয়ে জালের মত অংশ থাকে যা দিয়ে ভেন্টিলেশনের সুবিধা থাকে।

 

৪। প্রতিদিন পরিষ্কার মোজা পড়লে বড় পার্থক্য দেখতে পাবেন। সুতির, উলের বা ঘাম শোষণকারী মোজা পায়ের আর্দ্রতা শোষণে সাহায্য করে।

 

৫। পরপর দুই দিন একই মোজা জোড়া পড়া থেকে বিরত থাকুন। নিউ ব্যালেন্সের সিনিয়র প্রোডাক্ট ম্যানেজার ব্রায়ান গোথি বলেন, “দিন শেষে আপনার জুতা জোড়াতে বায়ু চলাচল করতে দিন”। জুতা খুলে এমন জায়গায় ও এমন ভাবে রাখুন যাতে ভেতরের অংশ পুরোপুরি শুষ্ক হতে পারে।

 

৬। ব্রায়ান আরো বলেন, আপনার জুতা শুষ্ক ও ঠান্ডা পরিবেশে রাখুন। স্যাঁতসেঁতে জুতা জোড়া যদি আর্দ্র পরিবেশে রাখেন তাহলে এর দুর্গন্ধ দূর হবে না।

 

৭। আপনার জুতা জোড়া যদি ধুতে চান তাহলে কিছু সতর্কতা অবলম্বন করা প্রয়োজন। চামড়ার জুতা না ধোয়াই ভালো। অন্য উপাদানে তৈরি জুতা ধুয়ে নিতে পারেন। ধোয়ার পড়ে সূর্যের আলোতে শুকিয়ে নিন।

 

৮। ৪ কাপ পানিতে ১/২ কাপ ভিনেগার মিশিয়ে এই মিশ্রণটিতে আপনার পা ডুবিয়ে রাখুন ১৫ মিনিট। ভিনেগার প্রাকৃতিক অ্যাসট্রিনজেন্ট বা রোধক হিসেবে কাজ করে তাই ঘাম কমাতে সাহায্য করে। ভিনেগার যেহেতু এসিডিক তাই এর ব্যবহারের পর কয়েক ঘন্টা আপনার পা শুষ্ক থাকবে।

 

৯। পায়ের দুর্গন্ধ দূর করার জন্য দিনের কিছুটা সময় খালি পায়ে হাঁটা প্রয়োজন।

 

১০। সুগন্ধের জন্য পায়ের পাতায় ল্যাভেন্ডার অয়েল ব্যবহার করুন। এটি অ্যান্টি ফাংগাল এজেন্ট হিসেবেও কাজ করে। একটি পাত্রে আধা লিটার পানি নিয়ে এর মধ্যে ২-৩ ফোঁটা ল্যাভেন্ডার অয়েল মিশান। এই মিশ্রণটিতে আপনার পা ভিজিয়ে রাখুন ২০ মিনিট যাবত। সপ্তাহে দুই দিন ব্যবহার করলেই পার্থক্য বুঝতে পারবেন।

 

কখন চিকিৎসকের শরণাপন্ন হতে হবে?

অন্য কোন স্বাস্থ্য সমস্যার কারণেও পায়ের পাতার দুর্গন্ধ হতে পারে। ছত্রাকের সংক্রমণ যেমন- অ্যাথলিট’স ফুট হলে পায়ের পাতায় দুর্গন্ধ হতে পারে, হাইপাররিড্রোসিস হলে ঘামের পরিমাণ বৃদ্ধি পায় তাই পায়ের পাতার দুর্গন্ধ হওয়ার সমস্যাটি ও বেড়ে যায়। যদি উপরোক্ত পরামর্শ গুলো মেনে চলার পরও আপনার পায়ের পাতার ঘাম ও দুর্গন্ধের সমস্যাটির সমাধান না হয় তাহলে চিকিৎসকের শরণাপন্ন হওয়া প্রয়োজন।

Check Also

প্রেগনেন্সি পরবর্তী ১১ টি সত্য যা কেউ আপনাকে বলেনি!

প্রেগনেন্সি পরবর্তী ১১ টি সত্য যা কেউ আপনাকে বলেনি!   আপনার গর্ভজাত ছোট্ট শিশুটির জন্মের …

Loading...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *